মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

বিশেষ অর্জন

 

জেলা প্রশাসনের ভিশন ও মিশন


ভিশন

  • জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেওয়া
  • জন-সচেতনতা সৃষ্টি
  • স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা

মিশন

  • দ্রুত সর্বোত্তম সেবা প্রদান
  • জনগনের ভোগান্তি নিরসন
  • জনগনের জন্য প্রশাসন
  • আইসিটির ব্যবহার

নূতন দিগমন্তের সূচনাঃ জেলা  ই-সেবাকেন্দ্র

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ই-সেবাকেনদ্র স্থাপনের মধ্য দিয়ে মানিকগঞ্জের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সংযোজন হয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে প্রদত্ত সেবাসমূহকে জনগণের দোরগোড়ায় সহজতর উপায়ে পৌঁছে দেয়াই জেলা ই-সেবাকেদ্রের উদ্দেশ্য। জেলা ই-সেবা কেন্দ্রের সিস্টেমের সাথে একটি ওয়েব এপ্লিকেশন (ড্যাশবোর্ড) রয়েছে। জেলা ই-সেবা কেন্দ্র চালু হওয়ার ফলে মানুষের তথ্য জানার অধিকার নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে। একজন আবেদনকারী মোবাইলে এসএমএস অথবা অনলাইনে তার সেবার সর্বশেষ অবস্থা জানতে পারে। যেকোনো সেবার জন্য আবেদন করলে আবেদনকারীকে গ্রহণ নম্বরসহ একটি রশিদ দেয়া হয়। এ রশিদে সেবা প্রদানের সম্ভাব্য তারিখ উলেস্নখ থাকে। নির্দিষ্ট দিনের আগেই যদি সেবাটি প্রসত্মুত হয়ে যায় সেক্ষেত্রে আবেদনকারীকে ফোন করে জানিয়ে দেয়া হয়। সেবা গ্রহীতা  ই-সেবা কেন্দ্রে ফোন করে তার আইডি নম্বর উলেস্নখ করলে প্রত্যাশিত সেবার অগ্রগতি জানতে পারছেন। আইডি নম্বরটি ১৬৩৪৫ নম্বরে এসএমএস করলেও ফিরতি এসএমএস এর মাধ্যমে (পুশ-পুল) তার আবেদনের বিষয়ের বর্তমান অবস্থা জানিয়ে দেয়া হচ্ছে। এর ফলে সেবা প্রদানে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হওয়ার সরকারি প্রতিষ্ঠানের উপর সাধারণ মানুষের আস্থা ফিরে এসেছে।

জেলা কাউন্টারঃ যা হচ্ছে

  • নাগরিক আবেদন ও অভিযোগ গ্রহণ
  • দাপ্তরিক পত্র গ্রহণ
  • নকলের আবেদন গ্রহণ
  • অল্প সময়ে পর্চা ও নকল প্রদান
  • নকশার আবেদন গ্রহণ ও প্রদান
    
    
    
    
    
    

 

ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রঃ

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাসত্মবায়নে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্র বা ইউআইএসসি নানামুখী উদ্যোগের অন্যতম। ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্র হলো ইউনিয়ন পরিষদে স্থাপিত তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর সেবা সমৃদ্ধ একটি আধুনিক কেন্দ্র। এসব কেন্দ্র থেকে ই-মেইল, কম্পিউটার কম্পোজ-প্রিন্ট-প্রশিক্ষণ, ফটো তোলা, ফটোকপি, সরকারী ফরম, পরীক্ষার ফলাফল, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির আবেদন, নাগরিক সনদ, ভিসার আবেদন, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সনদ, কৃষি পরামর্শ এবং মোবাইল ব্যাংকিং সহ নানা প্রকারের সরকারি ও বানিজ্যিক সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে। বর্তমানে মানিকগঞ্জে ৬৫ টি ইউআইএসসি’ তে ১৩০ জন উদ্যোক্তা কর্মরত আছে। ৬৫টি ইউআইএসসি’তে প্রতিমাসে গড়ে প্রায় ৩.৫০ লক্ষ টাকা আয় হয়।

ই-ফাইলিং ও ই-নোটিংঃ

  • বর্তমানে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সকল কর্মকান্ড সফটওয়্যার তথা জেলা ই-তথ্য সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে নিস্পত্তি করা হচ্ছে।
  • ড্যাশবোর্ড দেখে জেলা প্রশাসক অধঃসত্মনদের কার্যক্রম মনিটর করতে পারেন।

ড্যাশবোর্ডঃ

  • ড্যাশবোর্ডের মাধ্যমে কেবিনেট ডিভিশন এবং প্রয়োজনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বিভিন্ন অফিসের কাজকর্ম পর্যবেক্ষণ করতে পারেন।

ডিজিটাল সিভিল স্যূট ম্যানেজমেন্টঃ

  • সিভিল মামলার তথ্যাদি অনলাইনে এন্ট্রির মাধ্যমে মামলা পরিচালনায় স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা আনয়ন করা হয়েছে।
  • জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের আর.এম (রেভিনিউ মুন্সীখানা) ও ভি.পি (অর্পিত সম্পত্তি) শাখার মোট ১৪০০ মামলা অনলাইনে এন্ট্রি করা হয়েছে।
  • মামলা সংক্রামত্ম বিসত্মারিত তথ্য অনলাইনে উপস্থাপন করা হয়েছে।
  • রেকর্ড রুম ও নকল শাখাঃ
  • রেকর্ড রুম ও নকল শাখাজেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের একটি অতি গুরম্নত্বপূর্ণ শাখা। জমির রেকর্ড সংরক্ষণ এবং আবেদনের প্রেক্ষিতে রেকর্ড সমূহের নকল ও নকশা প্রদান সংক্রামত্ম যাবতীয় কাজ এ শাখার মাধ্যমে হয়ে থাকে। এগুলোর সরবরাহ পেতে অত্র  জেলার অমত্মর্গত বিভিন্ন স্থান হতে প্রতিদিন গড়ে ৬০০ থেকে ৭০০ লোকের সমাগম ঘটে।

জেলার বর্তমান ভূমি-রেকর্ড চিত্রঃ

  • মোট উপজেলার সংখ্যাঃ ০৭টি
  • মোট মৌজার সংখ্যাঃ ১৩২৬টি
  • মোট ভলিউম সংখ্যাঃ

ক) সি, এস ভলিউম সংখ্যা- ২,১৮৪টি

খ) পেটি ভলিউম সংখ্যা- ১৩৮ টি

গ) এস, এ ভলিউম সংখ্যা- ১৬৯৭ টি

ঘ) আর, এস ভলিউম সংখ্যা- ২২৪৬ টি

                            সর্বমোট- ৬২৬৫ টি

সি-এস, আর.-এস ও এস, এ খতিয়ান সংখ্যার বিবরণঃ

(ক) সি, এস, খতিয়ান সংখ্যা =৩,০১,৮৪৭টি

(খ) আর, এস, খতিয়ান সংখ্যা =৩,৫৫,৮২৯ টি(গ) এস, এ, খতিয়ান সংখ্যা =৩,৩১,৫০৬ টি                                           

ডিজিটাল রেকর্ড রুমঃজেলা প্রশাসনের গৃহীদ পদক্ষেপ সমূহ-

->বিনা মূল্যে আবেদন সরবরাহ

->নির্দিষ্ট পরিমান ফি গ্রহণ

->আবেদন গ্রহণের ২৪ ঘন্টার মধ্যে নকল সরবরাহ

->২ শিফটে আবেদন  গ্রহনঃ ১ ম শিফটঃ ৯ টা থেকে ১১টা পর্যমত্ম

                                                          ২য় শিফটঃ ২টা থেকে ৪টা পর্যমত্ম

->নকল সরবরাহঃ ১ম শিফটঃ পরবর্তী ২৪ ঘন্টার মধ্যে

                                             ২য় শিফটঃ পরবর্তী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে

->কেস নথী সরবরাহ

->দক্ষ জনবল বাড়ানো

-> প্রতি দিন গড়ে ৪৫০থেকে ৫০০টি কম্পিউটারাইজড পর্চা প্রদান

 

বিগত তিন বছরের উন্নয়ন চিত্র

বিগত তিন বছরে রাসত্মাঘাট, ব্রীজ-কালভার্ট, শিল্প কারখানা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণেরত্রে প্রভূত ক্ষেত্রে অগ্রগতি হয়েছে। স্থাপিত হয়েছে নার্সিং কলেজ, টেক্র্টাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট, ২৫০ বেড হাসপতাল (উন্নীত করণ), জেলা রেজিষ্ট্রি অফিস, গণগ্রন্থাগার কেন্দ্র ও জুডিশিয়াল ভবন।

দারিদ্র বিমোচনঃ

পদ্মা, যমুনা ও কালিগঙ্গা বিধৌত মানিকগঞ্জ অত্যমত্ম দূর্যোগ প্রবণ একটি জেলা। প্রতিবছর হরিরামপুর ও দৌলতপুর উপজেলার অসংখ্য পরিবার নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে বাস্ত্তভিটাহীন হয়ে পড়ে। ভূমিহীন দরিদ্র পরিবারের আবাসন নিরাপত্তার প্রয়োজনে আবাসন প্রকল্প (আশ্রায়ন প্রকল্প ফেইজ-২) এর আওতায় ২০১১-১২ অর্থ বছরে ৯৪০টি পরিবারের মধ্যে মোট ৭৫.৮৪ একর খাসজমি বরাদ্দ প্রদান করা হয়। নদী ভাঙ্গনের এলাকায় হরিরামপুর ও দৌলতপুর উপজেলায় মোট ১৩টি আশ্রয়ণ প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর আওতায় ১৬০টি সেড নির্মিত হয়েছে। যা থেকে মোট ১৫০০ পরিবার উপকৃত হচ্ছে। ২২টি আদর্শগ্রাম প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এ পর্যমত্ম ১,৪৫৩ টি পরিবারকে পূর্নবাসিত করা হয়েছে।

সমাজ সেবা কার্যালয়ের অধীনে বিভিন্ন প্রকার ভাতা চালু রয়েছে। মোট ৪৩,৫৯৮ টি পরিবার এসব ভাতা  সুবিধা ভোগ করছে। নিমেণ সমাজসেবা কার্যালয়ের ভাতা প্রদানের পরিসংখ্যান দেয়া হলোঃ

 

বয়স্ক ভাতাভোগীর

সংখ্যা

অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীর

সংখ্যা

প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি ভোগীর

সংখ্যা

মুক্তিযো্দ্ধা সম্মানী ভাতাভোগীর

সংখ্যা

বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা ভাতাভোগীর

সংখ্যা

২৮৯৭৫

৩০৭২

১৫০

১৫০০

৯৯০১

 

 

 পলস্নী সমাজসেবা কার্যক্রম, মাতৃকেন্দ্র প্রকল্প (শিবালয়, হরিরামপুর ও সিংগাইর উপজেলা) ৬ষ্ঠ পর্ব (আরএসএস), এবং এসিডদগ্ধ মহিলা ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের পূনর্বাসন কার্যক্রম (সকল উপজেলা) এর মাধ্যমে ২,৬১,০০,৬৪০ টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়।

একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্প এর মাধ্যমে দারিদ্র দূরীকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির কার্যক্রম অব্যাহত আছে। নিমেণ মানিকগঞ্জ জেলার একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের পরিসংখ্যান দেয়া হলোঃ

 

জেলা

ইউনিয়ন

সমিতির সংখ্যা

সদস্য ভর্তি

পুজিগঠন

মানিকগঞ্জ

২৮টি

২৫২টি

১৫,১২০ জন

১০.০৭ (লক্ষ)

 

শিক্ষার উন্নয়নে গৃহীত কার্যক্রম

শিক্ষা

প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ মানিকগঞ্জ জেলার ৭টি উপজেলার ৭টি মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ক্লাশ রম্নম স্থাপন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে পাঠদান সম্ভব।

Mid Day Mealtমানিকগঞ্জ জেলার ৭টি উপজেলায় মোট ২২টি বিদ্যালয়ে স্থানীয় অভিভাবক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিগণের উদ্যোগে Midday Meal কার্যক্রম বাসত্মবায়িত হচ্ছে।

বই বিতরণঃ ৩১ ডিসেম্বর ২০১১ খ্রিঃ তারিখের মধ্যে অত্র জেলায় প্রতিটি বিদ্যালয়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক বই পৌঁছানো হয়েছে এবং ১ জানুয়ারী ২০১২ খ্রিঃ তারিখে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হাতে বই বিতরণ করা হয়েছে। অত্র জেলায় পাঠ্য বই সংক্রামত্ম কোন সমস্যা নেই।

বিদ্যালয় বিহীন গ্রামে বিদ্যালয় স্থাপনঃ মানিকগঞ্জ জেলার ৭টি উপজেলায় ২১টি বিদ্যালয় বিহীন গ্রামে বিদ্যালয় স্থাপনের কাজ চলমান আছে।

অবকাঠামোগত উন্নয়নঃ মানিকগঞ্জ জেলার ৭টি উপজেলায় সর্বমোট ১৬৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মান কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং ৩২৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মেরামত ও সংস্কার কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

এছাড়া শিক্ষা সম্প্রসারনের জন্য বিভিন্ন প্রকার প্রকল্প বাসত্মবায়ন করা হচ্ছেঃ

1) ১০ (দশ)কোটি টাকা ব্যয়ে সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের হোস্টেল নির্মাণ

2) টেক্সটাইল ভোকেশনাল  ট্রেনিং ইনস্টিটিউট স্থাপন

3) কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন

4) নাসিং ট্রেনিং কলেজ স্থাপন

 

*** মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্কাউটের জন্য ৩ (তিন) বিঘা জমি বরাদ্দ প্রদান করেছেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম

সারা জেলায় ইপিআই কর্মসূচীর আওতায় ২,৭২,২১৫ জন শিশুকে বিভিন্ন ধরণের ঠিকা দেয়া হয়েছে। ১,৫২,৭৭৩ জন গর্ভবতী মহিলাকে প্রসূতি সেবা দেয়া হয়েছে। ৭,৯৯,৩৯৪ জন রোগীকে আউট ডোর চিকিৎসা এবং ২৮,৯১১ জন রোগীকে ইনডোর চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

 

  • বিগত সময়ে বন্ধথাকা ১১৬ টি কমিউনিটি  ক্লিনিক চালু করে ১৪৬ জন হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাইর নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে।
  • এডহক ভিত্তিতে ১৬ জন ডাক্তার ও ১২৫ জন স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগ।
  • উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ও সদর হাসপাতালে ২১ জন সিনিয়র স্টাফ নার্স নিয়োগ
  • সিঙ্গাইর, দৌলতপুর ও সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৩১ শয্যা হতে ৫০ শয্যায়  উন্নীত করণ
  • একটি আধুনিক মর্গ স্থাপন
  •  নতুন ০২ (দুই)টি এ্যাম্বুলেন্স সরবরাহ
  • হরিরামপুর উপজেলায় ডিএসএফ (ডিমান্ড সাইড ফাইনান্সিং) কার্যক্রমের আওতায় গরীব ও দুঃস্থ মহিলাদের গর্ভকালীন, প্রসবকালীন, প্রসবউত্তোতর সেবা প্রদান করা হচ্ছে। এতে মাতৃ মৃত্যুর হার উলেস্নখ্যযোগ্য পরিমান হ্রাসপেয়েছে।
  • জন্ম নিবন্ধন ৯৮% এ উন্নীত
  • নার্সিং ট্রেনিং কলেজ নির্মাণ কাজ সমাপ্তির পথে
  • হরিরামপুর  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৫০ বেডে উন্নীতকরনের কাজ চলছে
  • তিনটি ইউনিয়নে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র স্থাপন
  • পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে ৬২ জন (স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও এমএলএসএস) লোক নিয়োগ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রের উন্নয়নে প্রস্তবনা

  • ট্রমা সেন্টার স্থাপন (মানিকগঞ্জে  সর্বাধিক সড়ক দুর্ঘটনা সংঘঠিত হয়)
  • ১ টি বক্ষব্যাধি হাসপাতাল নির্মাণ
  • অবশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ

কৃষি ক্ষেত্রে অগ্রগতি

বর্তমানে চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ধান, গম ও পাট  বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প, চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ডাল, তেল ও পিঁয়াজ বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প, ডিজাস্টার এন্ড ক্লাইমেট রিস্ক ম্যানেজমেন্ট ইন এগ্রিকালচার (ডিসিআরএমএ) প্রকল্প সহ নানা কর্মসূচী চালু রয়েছে ।

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মানিকগঞ্জে বাসত্মবায়িত প্রকল্পের নামঃ

  • চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ধান, গম ও পাট  বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প
  • চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ডাল, তেল ও পিঁয়াজ বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প
  • লীফ কালার চার্ট (এলসিসি) জনপ্রিয়করণ ও ব্যবহারের মাধ্যমে ইউরিয়া সাশ্রয় প্রকল্প
  • আইপিএম (সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা)
  • আইসিএম (সমন্বিত শস্য ব্যবস্থাপনা)
  • ডিজাস্টার এন্ড ক্লাইমেট রিস্ক ম্যানেজমেন্ট ইন এগ্রিকালচার (ডিসিআরএমএ) প্রকল্প

উলেস্নখযোগ্য গৃহীত কর্মসুচীঃ

1.       বোরো উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষক-কৃষাণীদের প্রশিক্ষণ প্রদান।

2.      বারি সরিষা ১৪ ও ১৫ জাতের ব্রিডার সীড কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

3.      সরিষা, ভূট্টা ও পেঁয়াজ উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষক-কৃষাণীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

 

খাদ্য ঘাটতি নিরসনকল্পে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করায় খাদ্য ঘাটনি হ্রাস পেয়েছে। নিমেণ বিগত ০৩ (তিন) বছরের তুলনামূলক চিত্র দেয়া হলোঃ

 

সন

মোট চাহিদা (মে:টন)

উৎপাদন (মে:টন)

ঘাটতি (মে:টন)

২০০৯

৩০১১৬১

২৯১৬১২

৯৫৪৯

২০১০

৩০৬২৭৬

৩০১২১৪

৩৪৬২

২০১১

৩১১১৪২

৩০৯৫০২

১৬৪৯

 

সড়ক বিভাগের উন্ন্য়ন কার্যক্রম

মানিকগঞ্জ জেলায় মোট ২২০ কি.মি. দীর্ঘ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। তন্মধ্যে ২০৫ কি.মি. পাকা, ২.৫০ কি.মি. আধা পাকা এবং ১২.৫০ কি.মি. কাঁচা।

 বর্তমান কার্যক্রমঃ

 

ক) আরিচা-ঘিওর-দৌলতপুর-নাগরপুর-টাঙ্গাইল সড়ক উন্নয়ন। (এডিপি নং-২১)

খ) দোহার (কার্তিকপুর)-বায়রা-বালিরটেক (বাররিয়া সেতু) সড়ক উন্নয়ন। (এডিপি নং-৫৪)

গ) হেমায়েতপুর-সিংগাইর- মানিকগঞ্জ সড়কের বিভিন্ন কিঃমিঃ ৮টি পিসি গার্ডার সেতু এবং ২টি আরসিসি বক্সকালভার্ট নির্মাণ প্রকল্প (ক্রমিক নং-১১৯)

ঘ) মানিকগঞ্জ সড়ক বিভাগাধীন গোলড়া-সাটুরিয়া সড়কের বিভিন্ন কি.মি. এ ৬টি সেতু নির্মাণ প্রকল্প (এডিপি ক্রঃ নং-৮৯)

ঙ) ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক সমূহের জরম্নরী পূনবার্সন প্রকল্প

চ) জেলা সড়ক উন্নয়ন

পানি উন্নয়ন বোর্ড

নির্বাহী প্রকৌশলী, মানিকগঞ্জ পানি উন্নয়ন বিভাগ, পাউবো, মানিকগঞ্জ এর তত্ত্বাবধানে

  • মানিকগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায় বাঁধ নির্মাণ,
  • বাঁধের সেস্নাপ প্রটেকশন
  •  ০৯টি রেগুলেটর/ড্রেইনেজ আউটলেট নির্মাণ
  •  নদী ভাঙ্গন রোধে নদী তীর সংরক্ষন 
  • মানিকগঞ্জ সদর, ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয় উপজেলায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ সংস্কার, প্রতিরক্ষা কাজ
  • যমুনা নদীর পাইলট চ্যানেল ড্রেজিং
  • জনগুরম্নত্বপূর্ণ স্থাপনা ও স্কুল-কলেজ রক্ষার্থে প্রতিরক্ষা কাজ
  • কাবিখা কর্মসূচীর আওতায় ঘিওর, দৌলতপুর ও মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় জনগুরম্নত্বপূর্ণ রাসত্মা মেরামত ও নদী/খাল পূনঃখনন কাজ

গণপূর্ত বিভাগ

বাসত্মবায়িত প্রকল্প:

· আরিচায় নৌ চলাচল পূর্বাভাস কেন্দ্র নির্মাণ

· ১০ টি ভূমি অফিস নির্মাণ

চলমান প্রকল্পঃ

                  ১। মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স

                  ২। টেক্সটাইল ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট

                  ৩। কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

                  ৪। রেজিষ্ট্রি অফিস নির্মান

                  ৫। চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট বিল্ডিং

                  ৬। হরিরামপুর, সিংগাইর ও ঘিওরে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র নির্মাণ

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান

বিগত তিন বছরে  মানিকগঞ্জ জেলায় ২২টি প্রকল্পর আওতায় মোট ৫৮২টি প্রকল্পে ২৫৯.৮৩ (লক্ষ) টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

 

প্রকল্পের বিবরণ

 

মোট প্রকল্প সংখ্যা

মোট চক্তিমূল্য/

প্রাক্কলিত মূল্য  (কোটি টাকায়)

মোট

ব্রীজ/কাল

ভার্ট (মিঃ)

 মোট ভবন/বাজার সংখ্যা (টি)

মোট রাস্তা (কিঃমিঃ)

ব্যয়িত অর্থ      (কোটি টাকা)

(ক) বাসত্মবায়িত প্রকল্প

৩৭২

১৬৬.০৭

১৫৫৮.১৬

১০

২৮৭.৫০

১৬৪.৭৭

(খ) বাসত্মবায়ানাধীন প্রকল্প

২১০

৯৩.৭৬

১৬০৯.৮০

৯৩.৯৭

২২.০৮

(গ) প্রসত্মাবিত প্রকল্প

৪৫

৩৮.০০

১৯৩০.০০

-

৫৫.৫৬

-

মোট

৬২৭

২৯৭.৮৩

৫০৯৭.৯৬

১৪

৪৩৭.০৩

১৮৬.৮৫

 

বিদ্যুৎ ব্যবস্থার উন্নয়ন

বিগত ০৩ (তিন) বছরের মানিকগঞ্জ জেলার বিদ্যুতের উন্নয়নঃ

 

০১

অর্ন্তভুক্ত ইউনয়নঃ

 

৬২টি

০২

অর্ন্তভুক্ত গ্রামঃ

 

১৩২৪টি

০৩

এলাকার সংখ্যাঃ

 

০৯টি

০৪

বিদ্যুতায়িত মোট লাইনঃ

 

৩২২২.৮৮৭ কিঃ মিঃ

০৫

গ্রাহক সংযোগঃ

 

১,৫১,৬৭৫টি

০৬

উপকেন্দ্রঃ

 

০৬টি

০৭

সৌর বিদ্যুৎ চালিত সেচ পাম্প স্থাপনের পরিকল্পনাঃ

 

০৪টি

০৮

সোলারহোম সিস্টেম স্থাপনের পরিকল্পনাঃ

 

৩০০টি

০৯

ডিপোজিত ওয়ার্কের আওতায় লাইন নির্মাণঃ

 

৩৭ কিঃ মিঃ

 

আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি

  • ক) মানিকগঞ্জ জেলার সার্বিক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি  স্বাভাবিক।
  • খ) কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম
  • গ) মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে নিয়মিত মাদক ও চোলাচালান বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।

বিগত ০৩ (তিন) বছরের অপরাধ চিত্রঃ

 

ক্রঃ নং

অপরাধের ধরণ

সংঘঠিত অপরাধের সংখ্যা

২০০৯

২০১০

২০১১

০১

জাকাতি

০৫

০৯

০৫

০২

দস্যুতা

০৯

১১

০৯

০৩

সিঁধেল চুরি

৫০

৫৫

৩৯

০৪

চুরি

৪৬

৪৩

৪২

০৫

খুন

২৮

৪৭

৪০

০৬

নারী ও শিশু নির্যাতন

৭৮

১৩৩

১৬২

০৭

অপহরণ

০২

০৫

০২

০৮

গবাদি পশু চুরি

০৬

১০

-

০৯

অস্ত্র আইন

০৩

০৫

০৩

১০

দাঙ্গা

০১

০২

-

১১

চোরাচালান/মাদক

১০৩

১১২

১৭২

১২

অন্যান্য

৭৭৯

৬৪০

৫৪৭

মোট=

১১০৮

১০৭২

১০২১

 

বিগত ০৩ (তিন) বছরের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার চিত্রঃ

 

সাল

মোট মামলার সংখ্যা

জরিমানা আদায়কৃত মামলার সংখ্যা

আদায়কৃত টাকার পরিমাণ

সাজাকৃত মামলার সংখ্যা

মন্তব্য

২০০৯

৩১২

২৯০

৫,০১,২১০/-

-

মোবাইল কোর্ট আইন -২০০৯ অনুযায়ী

২০১০

৪২৩

৪০৬

৮,২১,৩১০/-

১৩

২০১১

৫৪১

৫১৭

৬,৮৫,৩২৫

২৪

 

বিগত ৩ বছরে জেলা পরিষদের উন্নয়ন

  • রাজস্ব তহবিলের আওতায় গৃহীত প্রকল্প সংখ্যা : ৯৯ টি
  • মোট বরাদ্দ =২,৬৬,৩৮,৪৭৬/- টাকা
  • নিজস্ব তহবিলের  আওতায় গৃহীত সংখ্যা : ৫২ টি
  • মোট বরাদ্দ ৯৫,৯২,৮৬০/- টাকা
  • সাটুরিয়া ও দৌলতপুরে ডাকবাংলো নির্মাণ।
  • কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বেকার যুবকদের কম্পিউটার ও ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ।
  • মহিলাদের সেলাই প্রশিক্ষণ

 

প্রস্তাবনাঃ জেলা পরিষদ বানিজ্যিক ভবন নির্মাণ

মানিকগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়ন কার্যক্রম

বাসত্মবায়িত:

  • নতুন পাকা রাসত্মা তৈরী- ৩৩.৭৭
  • কিঃমিঃ ব্রীজ  নির্মাণ - ৮টি

চলমান প্রকল্প

  • আট তলা বিশিষ্ট পৌর পস্নাজা নির্মান কাজ।
  • ডাম্পিং গ্রাউন্ড উন্নয়ন কাজ।
  • শহর বিউটিফিকেশন প্রকল্প

শিল্প প্রতিষ্ঠান

ঢাকার নিকটবর্তী হওয়ার ফলে মানিকগঞ্জে অনেক ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

  • ১। আকিজ পার্টিকেল লিঃ
  • ২। আকিজ টেক্সটাইল
  • ৩। মুন্নু ফেব্রিকস লিঃ
  • ৪। বসুন্ধরা ষ্টীল কমপে­ক্স লিঃ
  • ৫। ঢাকা টোবাকো
  • ৬। রাইজিং নীট টেক্সটাইল লিঃ
  • ৭। তারাসীমা এ্যাপারেল লিঃ

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর

(ক) প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ ৪,৩২০ জন

(খ) ভ্রাম্যমান প্রশিক্ষণ (অপ্রাতিষ্ঠানিক)

            যুবক ১৪,৭৬০জন যুব মহিলা ১০,১২৫ মোট= ২৪,৮৮৮জন।

            সর্বমোট প্রশিক্ষণ (২৪,৮৮৮+৪৩২০) = ৩০,২০৮জন।

(গ) আত্মকর্মসংস্থান প্রকলস্ন - ১৪,৪৩৬ জন যুব, মহিলা ৯,৮০৮ জন মোট =২৪,২৪৪ জন।

(ঘ) যুব ঋণ,  ডিসেম্বর/২০১১ মাস পর্যমত্ম বিতরণকৃত ঋণের পরিমাণঃ ১০,৫৬,৫০,০০০/-

সম্ভাবনাঃ

  • যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন
  • ন্যাশনাল সার্ভিস চালু করণ

মৎস্য বিভাগঃ

  • জেলার মোট মাছের চাহিদা- ২৮,৬১৬.০০ মেট্রিক টন
  • জেলার মোট মাছের উৎপাদন-২৪৭১০.৬৩ মেট্রিক টন
  • জাটকা নিধন রোধ কল্পে ভিজিএফ কার্ড বিতরণ ২,১২৪টি
  • অভয়াশ্রমের সংখ্যা ও আয়তন- ১ টি ,আয়তন ০.৫ হেক্টর (হরিরামপুরের চালা ইউনিয়নে)
  • আরো ০৮ (আট)টি অভয়াশ্রম স্থাপনের পরিকল্পনা চলছে
  •  

 

প্রাণি সম্পদঃ ০৩ (তিন) বছরের অর্জন

  • মুরগীর খামার স্থাপন

 

ক)   লেয়ার-১৫৪টি

খ)    ব্রয়লার- ৮৫৩টি

 

·        -> ডিম উৎপাদন- ৬,৮৪,০০,০০০ টি

·        ->মাংশ উৎপাদন- ৬,৯৭,০০,০০০ কেজি

জেলার মাংশ ও ডিমের চাহিদা পূরণ করার পর ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী জেলায় ডিম ও মাংশ বিক্রয়ের জন্য প্রেরণ করা হয়।

পাসপোর্ট  বিভাগঃ

মানিকগঞ্জ জেলায় ২০০৭ সাল হতে পাসপোর্ট এর কার্যক্রম শুরম্ন হয় এবং অক্টোবর, ২০১১ থেকে এম.আর.পি চালু হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৯০ টি পাসপোর্ট ইস্যু করা হচ্ছে। সাধারণ পাসপোর্ট ২১ দিনে এবং জরম্নরী পাসপোর্ট ১০ দিনে প্রদান করা হয় (পুলিশ প্রতিবেদন স্বাপেক্ষে)।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করর্পোরেশন (বিসিক)

গৃহীত পদক্ষেপ

  • শিল্প উদ্যোক্তা চিহ্নিতকরণ- ২৬৮ জন
  • ঋণ ব্যবস্থাকরণ - ১২৩ টি শিল্প
  • বিনিয়োগকৃত অর্থের পরিমান- ৯৮৯.০০ লক্ষ
  • কর্মসংস্থান সৃষ্টি- ১৬৪৪ জন
  • শিল্প উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ - ১৬০ জন

ভবিষ্যৎ কার্যক্রমঃ

  • শিল্প নগরীর সম্প্রসারণ ( ভূমি অধিগ্রহনের পদক্ষেপ গ্রহণ)
  • ৮০ (আশি)টি ক্ষুদ্র শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন
  • ৪০০০ (চার হাজার) লোকের কর্মসংস্থান

জেলায় চলমান প্রকল্প

  • ১০কোটি টাকা ব্যয়ে সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের একাডেমিক ভবন ও হোস্টেল নির্মাণ
  • জেলা রেজিস্ট্রী অফিস নির্মাণ
  • মানিকগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ
  • শহর বাইপাস নির্মাণ
  • টেক্সটাইল ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট স্থাপন
  • জেলা নির্বাচন অফিসের সার্ভার স্টেশন নির্মাণ
  • ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন
  • জেলা কৃষি ভবন নির্মাণ
  • উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের আঞ্চলিক কেন্দ্র নির্মাণ

প্রস্তাবিত প্রকল্প

  • একটি আর্ন্তজাতিক মানের ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণ
  • আধুনিক মর্গ স্থাপন
  • মানিকগঞ্জ পৌরসভায় পানি শোধনাগার প্রকল্প
  • বেউথা ও বালিরটেকে কালীগংগা নদীতে ব্রীজ নির্মাণ
  •  মানিকগঞ্জ জেলার প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংরক্ষণ প্রকল্প।
  • জিমনেসিয়াম নির্মাণ
  • সাটুরিয়া উপজেলা সংযোগ সড়কে ০৬টি ব্রীজ নির্মাণ
  • হেমায়েতপুর-সিংগাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহা সড়ক নির্মাণ

সমস্যাসমূহ

  • সড়ক দুর্ঘটনা
  • নদী ভাঙ্গন
  • পাটুরিয়া ঘাটে দীর্ঘ যানজট
  • নদী দূষণ
  • বন্যা
  • নীচু ভূমি
  • গ্যাস সংকট
  • অনুন্নত উপজেলা সংযোগ সড়ক

সম্ভাবনাসমূহ

  • পাটুরিয়ায় দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণ
  • ঢাকা-মানিকগঞ্জ-পাটুরিয়া পর্যমত্ম রেল যোগাযোগ স্থাপন

·         আরিচায় পাওয়ার পস্ন্যান্ট ও ইপিজেড নির্মাণ করে বিশেষ অর্থনৈতিক জোন ঘোষণা

  • ধলস্নায় শিল্পনগরী স্থাপন
  • সিংগাইরে পাওয়ার পস্ন্যান্ট স্থাপন
  • সিংগাইরে স্যাটেলাইট টাউন নির্মাণ
  • একটি ট্রমা সেন্টার স্থাপন
  • তরা ব্রীজ থেকে গাবতলী হয়ে সদরঘাট  পর্যমত্ম ওয়াটার বাস চালুকরণ
  • মানিকগঞ্জ জেলা শহরে বাস ও ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ

· মানিকগঞ্জ জেলা শহরে আমর্ত্মজাতিক মানের একটি টিক্রেট স্টেডিয়াম নির্মাণ

· পৌরসভার মধ্যে কালিগঙ্গা নদীর উপর বেউথা ব্রীজ নির্মাণ

  • শিবালয়ে আলোকদিয়া চরকে কেন্দ্র করে পর্যটন শিল্পের বিকাশ
  • আলোকদিয়া চর এ ইকো পার্ক স্থাপন
  • আলোকদিয়া চর এ ক্যাবল কার (আরিচা-আলোকদিয়া-পাটুরিয়া-আরিচা) স্থাপন
  • মানিকগঞ্জে একটি বিশ্ববিদ্যালয় ও একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন

              · আরিচা -নগরবাড়ী রুটে Yব্রীজ নির্মাণ

              · শিল্পকলা একাডেমী ভবন নির্মাণের জন্য অর্থ বরাদ্দ প্রদান   

  · সাটুরিয়ায় এগ্রিকালচার ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (এ টি আই) স্থাপন

  · মানিকগঞ্জ শহর বাইপাস রাসত্মা নির্মাণ

· জেলা পরিষদ মানিকগঞ্জ নির্মিতব্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর স্মৃতি ভাষ্কর্যসহ মাল্টিপারপাস টাওয়ার নির্মাণ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকার গত তিন বছরে পশ্চাৎপদ মানিকগঞ্জকে উন্নয়নের মহাসড়কে সম্পৃক্ত করে নবদিগেন্তর সূচনা করেছেন । পাশাপাশি যে সব কর্মসূচী বাস্তবায়নের অপেক্ষায় রয়েছে সে সব কর্মসূচীর সফল বাসত্মবায়ন মানিকগঞ্জের আর্থসামাজিক উন্নয়নে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধন করবে। এই কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন এবং পরিবর্তনের জন্য মানিকগঞ্জের মানুষ অপেক্ষা করেছেন যুগের পর যুগ। জেলার এই সার্বিক উন্নয়ন মানিকগঞ্জকে উজ্জীবিত এবং  আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। এই আশাবাদ আত্মবিশ্বাসী, আধুনিক ও স্বনির্ভর এক মানিকগঞ্জের জন্ম দেবে, এ বিষয়ে সন্দেহ করবার কোন অবকাশ বর্তমান বাসত্মবতায় দৃশ্যমান নয়।